গীতা পাঠ প্রতিযোগিতায় ‘সেরার সেরা’ পুরস্কার পেল ১৬ বছরের এক মুসলিম কিশোর

গোটা দেশে যখন হিন্দু মুসলিম নিয়ে চলছে টানাহ্যাঁচড়া। যেখানে এ ওকে কাদা ছুড়তে ব্যাস্ত। যে সমাজে এখনও কোনও কোনও হিন্দু বাড়ির পূজার ঘরে ঢুকতে পারে না মুসলিম কাজের মাসি। ঠিক সেই সময়ে রাজস্থানের জয়পুর যেন দেখা পেল এক বিস্ময় বালকের। যে কোরান পাঠে সেরা, সে কিনা শ্রীমদ্ভগবতগীতা পাঠেও সেরা? মুসলিম ছেলে হয়ে কিনা নির্ভুলভাবে পাঠ করল গীতা? হ্যাঁ সে ছেলে মুসলিমই বটে। নাম তাঁর আবদুল কাগজি। প্রতাপনগরে ডাকিং সিনিয়র সেকেন্ডারি স্কুলের ছাত্র সে। রাজস্থানের জয়পুরে হরেকৃষ্ণ মিশন ও অক্ষয় পাত্র ফাউন্ডেশন যৌথভাবে প্রতিবছরের ন্যায় এ বছর ও বার্ষিক গীতা কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল। আর তাতেই এক চমকপ্রদ ঘটনা ঘটায় আবদুল কাগজি।

 

মুসলিম হওয়া সত্তেও হিন্দু ধর্মগ্রন্থ শ্রীমদ্ভগবতগীতা পাঠের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে সে। আর তারপর তার শ্রুতিমধুর স্তুতি পাঠ এবং নির্ভুল উচ্চারণ মুগ্ধ করে বিচারক আসনে বসা, তথা উপস্থিত সমস্ত মানুষকে। এ বছর গীতা পাঠের থিম ছিল, ‘শ্রী কৃষ্ণ কে জানো’। ছয় মাস ধরে দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হয় এই প্রতিযোগিতা। যাতে প্রায় ৫০০০ প্রতিযোগীকে হারিয়ে প্রথম স্থান অধিকার করে এই কিশোর। স্বাভাবিক ভাবেই কাগজির এই কীর্তিতে হতবাক বিচারকরা।

 

তবে এই তার প্রথম নয়। জানা গেছে, এর আগেও শ্রীকৃষ্ণকে নিয়ে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতাসহ, হরেকৃষ্ণ মিশন আয়োজিত আরও দুটি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে ভাল ফল করেছিল সে। তার এই সাফল্যের পেছনের কারণ জানতে চাইলে আবদুল কাগজি বলে, শ্রী কৃষ্ণ কে নিয়ে টিভিতে কার্টুন দেখেই তাঁর প্রতি আকৃষ্ট হয় সে। পাশাপাশি কৃষ্ণের বিভিন্ন বই পড়েও তাঁর প্রতি আগ্রহ জন্মেছে তার। তবে তার যে কেবল হিন্দু ধর্ম বা শ্রীকৃষ্ণের প্রতি ভালবাসা তা নয়। নিজের ধর্মের প্রতিও তার ভালবাসার কমতি নেই। উল্লেখ এর আগে মুসলিম ধর্মগ্রন্থ কোরআন নিয়ে আয়োজিত ক্যুইজেও পুরস্কার পেয়েছিল আবদুল কাগজি।