দুর্গাপুরে চাকরি অবস্থায় মৃত কর্মীদের ‌ পরিবর্তে চাকরির দাবিতে বিক্ষোভ 

বেতার বার্তা নিউজ ডেস্কঃ  উজ্জ্বল, পশ্চিম বর্ধমান,দুর্গাপুর, প্রতিশ্রুতি ছিল চাকরীর, কিন্তু নয় বছর হয়ে গেলেও জোটেনি সেই চাকরি। বারবার কর্তৃপক্ষ, এমনকি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও হাতে হাতে চিঠি দিয়ে তাদের সমস্যার কথা জানিয়েছিলেন কিন্তু মেলেনি সেই চাকরি। বাধ্য হয়ে বুধবার রাজ্য সরকারের অধীনস্থ সংস্থা ডিপিএলের প্রশাসনিক ভবনের সামনে বসে পড়লো সংস্থার মৃত কর্মীর পরিবারবর্গ।‌

বুধবার সংস্থার ম্যানেজিং ডাইরেক্টর কলকাতা থেকে দুর্গাপুরের অফিসে ঢুকলে ক্ষোভে ফেটে পড়েন আন্দোলনকারীরা। পরিস্থিতি সামলাতে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে কোক ওভেন থানার পুলিশ কিন্তু পুলিশকেও ঘিরে ধরে ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন আন্দোলনকারীরা, বিক্ষোভ দেখায় পুলিশকে ঘিরে ধরে। আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, আমরা না খেতে পেয়ে মরছি, আর সরকার সব জেনেও নীরব দর্শকের ভূমিকায় বসে রয়েছে।

প্রবল আন্দোলন সামলাতে এরপর ঘটনাস্থলে আসেন দুর্গাপুর পশ্চিমের বিধায়ক বিশ্বনাথ পারিয়াল, কথা বলেন ডিপিএল কর্তৃপক্ষের সাথে কিন্তু কর্তৃপক্ষ ফের সময় চাওয়াতে ক্ষোভ চরমে ওঠে, বিধায়ককে ঘিরে ধরে আন্দোলনকারীরা প্রশ্ন করতে থাকেন আগে সময় দিতে হবে কবে চাকরি হবে নচেৎ তারা আন্দোলনের রাস্তা থেকে সরছেন না। দুর্গাপুর পশ্চিমের তৃণমূল বিধায়ক বিশ্বনাথ পারিয়াল মেনে নেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হাতে হাতে চিঠি দিয়ে বিষয়টি জানানো হয়েছিল, কিন্তু কেন হল না সেটা জানিনা।

ডিপিএলের গেটের বাইরে টানা ৫৬দিন ধরে চাকরীর দাবীতে রাজ্য সরকারের অধীনে থাকা দুর্গাপুর প্রজেক্ট লিমিটেডের মৃত কর্মীর ২০৬জন পোষ্য ও তাদের পরিবার গেটের বাইরে অবস্থান বিক্ষোভ করছেন, কিন্তু সমস্যার সমাধান না হওয়াতে তারা প্রবল আন্দোলন শুরু করেছেন, এরই মধ্যে রটে যায় কর্তৃপক্ষ দশ জনকে চাকরিতে নেবে কিন্তু এতে পরিস্থিতি আরো বিগড়ে যায়।

আন্দোলনকারীরা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন চাকরি না পেলে ডিপিএল কারখানার ভেতরেই তারা মৃত্যুবরণ করবেন। ডিপিএলের জনসংযোগ আধিকারিক স্বাগতা মিত্র জানান, বিষয়টি দেখা হচ্ছে, এইদিকে বিজেপি নেতা অমিতাভ বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেছেন, প্রতিবার ভোট আসে আর এদের চাকরীর মিথ্যে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়।

অমানবিক এক সরকার চলছে এই রাজ্যে যারা মুখে অনেক কথা বললেও কাজে কিছু করেনা। সব মিলিয়ে গোটা ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা দুর্গাপুরে, ডিপিএলের গেটের বাইরে যতদিন না দাবী মিটছে ততদিন তারা বসে থাকবেন বলে আন্দোলনকারীরা জানিয়ে দিয়েছেন।

Comments